তাজা খবর:

পায়রা সেতুর ৮৪০ মিটার দৃশ্যমান                    আমতলীতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৪০                    নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসী হামলায় আহত কিশোরগঞ্জের লিপি লাইফ সাপোর্টে                    লক্ষ্মীছড়িতে দুর্গম ভোট কেন্দ্রে হেলিকপ্টারে নির্বাচনী সরঞ্জাম                    রাজশাহীতে বাড়ির সামনেই মিললো নিখোঁজ অটোচালকের ক্ষতবিক্ষত লাশ                    রাবি শিক্ষক ড. শফিউল হত্যা মামলার রায় শিগগিরই                    সিরাজদিখানে গৃহবধূর আত্মহত্যা                    “পায়রা বন্দরের মাধ্যমে পুরো বাংলাদেশকে আমরা সেবা দিতে চাই”                    সরকারী কলেজের সাড়ে ৩,শ শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অন্ধকারে                    আগৈলঝাড়ায় নারীদের নৌকা বাইচ                    
  • শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫

দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট রয়েছে রামেক হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিন

দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট রয়েছে রামেক হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিন

উত্তর বঙ্গের প্রায় ৮টি জেলা থেকে হাজার হাজার মানুষ চিকিৎসা নিতে আসেন রাজশাহী

বুড়িমারীতে গণধর্ষণ মামলার মুলহোতা নুরনবী ও নজু গ্রেফতার

বুড়িমারীতে গণধর্ষণ মামলার মুলহোতা নুরনবী ও নজু গ্রেফতার

লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থল বন্দর এলাকায় এক মহিলাকে চারদিন ধরে আটকিয়ে রেখে গণধর্ষণ করার

সাপাহারে বেকারত্ব দুরীকরণে খামার স্থাপন

সাপাহারে বেকারত্ব দুরীকরণে খামার স্থাপন

উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সম্ভাবনায় একটি বৃহত ছাগলের খামার স্থাপন  করেছেন নওগাঁর সাপাহার উপজেলা সদরের

পাইকগাছায় মধ্যযুগীয় কায়দায় বেঁধে বৃদ্ধাকে নির্যাতন

পাইকগাছায় মধ্যযুগীয় কায়দায় বেঁধে বৃদ্ধাকে নির্যাতন

খুলনার পাইকগাছায় দুর্বৃত্তরা মধ্যযুগীয় কায়দায় হতদরিদ্র বৃদ্ধা সখিনা (৬৫)কে বেঁধে নির্যাতন চালিয়েছে। তান্ডব

দেড় মাসে ৫ ভূয়া দুদক কর্মকর্তা গ্রেফতার: কোটি টাকা চক্রের পকেটে

এফএনএস মুহাম্মদ আমিন:

10 Mar 2019   03:41:49 PM   Sunday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 দেড় মাসে ৫ ভূয়া দুদক কর্মকর্তা গ্রেফতার: কোটি টাকা চক্রের পকেটে

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দেড় মাসে ৫ জন ভূয়া দুদক কর্মকর্তাকে গ্রফেতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তারা বিভিন্ন সরকারি দফতরের প্রায় হাজার কর্মকর্তাকে দুদকের চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন উচ্চপদস্থ কর্তা পরিচয়ে ভুয়া দুর্নীতি মামলার ভয়ভীতি প্রদর্শন করে গত দেড় মাসে বিভিন্ন বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারকচক্র। এ ঘটনায় প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ঘটনাস্থল এলাকা থানায় চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই সব মামলায় প্রত্যেকেই কারাগারে আছে বলে দুদক সুত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। চাঁদাবাজি মামলার আসামিরা হলেন, আনিসুর রহমান বাবুল ও তার সহযোগী ইয়াসিন তালুকদার। তাদের গত ১ ফের্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টার দিকে রাজধানীর হাজারীবাগ থানাধীন ৪১/১ সনাতনগড় বৌ বাজার এলাকা থেকে প্রতারকচক্রদের গ্রেপ্তার করা হয়, একই অভিযোগে হাসান মুন্না ওরফে রফিক (২৪) নামে এক ভুয়া দুদক কর্মকর্তাকে নয়াপল্টনের একটি রেস্টুরেন্ট থেকে আটক করেছে দুদকের গোয়েন্দা ইউনিট, গত ৭ নভেম্বর চাঁদার টাকা গ্রহনের সময় ঘঁনাস্থলেই ফয়েজ উদ্দিন ফয়সল রানা নামে এক প্রতারককে গুলিস্তানের রাজ হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্ট থেকে গ্রেফতার করে দুদকের বিশেষ টিম ও র‌্যাব। তার বিরুদ্ধে পল্টন থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। একই অভিযোগে নারায়ণঞ্জের সিদ্দিরগঞ্জ থেকে মহিলা নাজমার প্রকৃত নাম রাজু মিয়াকে র‌্যাবের সহায়তায় আটক করে দুদক। গত ১৪ ফের্রুয়ারি সিদ্দিরগঞ্জ থানা এলাকা থেকে প্রতারককে গ্রেফতারের পরের দিন সিদ্দিরগঞ্জ থানায় রাজুর বিরুদ্ধে মামলা করে কমিশন। তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন গোয়েন্দা ইউনিটের প্রধান কমিশনের পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদিন শীব্লী। তিনি জানান ১০৬ নাম্বারে পাওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে এসব প্রতারকচক্রদের আটক করা হয়। পরিচালক বলেন, তারা দুদকের বিভিন্ন কর্মকর্তাদের নাম পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণার কর্মকা- চালিয়ে আসছে।
কমিশনের গোয়েন্দা ইউনিট সূত্রে জানা যায়, এইসব প্রতারকচক্রকে গ্রেফতারের সময় তাদের হেফাজতে থাকা ২২টি মোবাইল ফোন ও ভুয়া নামে রেজিস্ট্রেশন করা ২৬টি সিমকার্ডও উদ্ধার করে র‍্যাব। একাধিক সহযোগীর সহায়তায় তারা এ প্রতারণা করে আসছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে র‍্যাবকে জানিয়েছে তারা। এ প্রতারণার শুরু ২০১৪ সালে মাদারীপুরের রাজৈর থানার এক প্রতারকের মাধ্যমে। দুর্নীতি দমন কমিশন দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান জোরদারের পর সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের টার্গেট করে তারা ফন্দি আঁটে। তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা প্রক্রিয়াধীন বা দুর্নীতির তথ্য সংগ্রহ হচ্ছে এমন তথ্য দিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে ভয় দেখিয়ে তারা অর্থ আদায় করে। এক্ষেত্রে, প্রাথমিকভাবে তারা সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে স্বশরীরে গিয়ে মোবাইল বা টেলিফোন নম্বর সংগ্রহ করে। এতে করে বিভিন্ন দফতর থেকে ফোন নম্বর ও খুব বেশি তথ্য সংগ্রহ সম্ভব না হওয়ায় সরকারি টেলিফোন ডিরেক্টরির সহায়তা নেয় প্রতারকচক্রটি।
এই চক্রের আরও ৭-৮ জন সদস্য পলাতক রয়েছে এবং একজন প্রধান হোতার বিষয়ে র‍্যাবের কাছে তথ্য দিয়েছে তারা। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে র‍্যাব। সিমের ভুয়া রেজিস্ট্রেশন, সিম সংগ্রহ ও বিকাশ অ্যাকাউন্ট তৈরির বিষয়ে আটক আনিসুর জানায়, বিভিন্ন দোকানে নিম্নবিত্ত মানুষ নতুন সিম কিনতে গেলে তাদের সিম ভুয়া রেজিস্ট্রেশন করে এবং তাতে বিকাশ অ্যাকাউন্ট খুলতো। এছাড়াও বিভিন্ন সিম বিক্রির দোকান থেকে ভুয়া রেজিস্ট্রেশন করা সিম সংগ্রহ করে তা দিয়েই প্রতারণার কাজ চালাত। একটি সিম কয়েক বার ব্যবহারের পর ফেলে দিত এই প্রতারকরা।
র‌্যাব ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হাজারীবাগ এলাকার একটি বিকাশের দোকানকেও দুদক কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করতেন বাবুল। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ‘ঘুষ’ হিসেবে যে অর্থ পাঠাতেন, সেই কার্যালয়ে তা গ্রহণ করত বাবুলের লোকজন। বিভিন্নজনের নামে মোবাইল ফোনের সিম সংগ্রহ করে সেখানে বিকাশ হিসাব খোলা হতো। ‘ঘুষ’ আদায়ের কাজে তারা ব্যবহার করে মোট ২১টি মোবাইল ফোন, ১৭টি সিম কার্ড ও একটি সরকারি টেলিফোন ইনডেক্স। ওই সব মোবাইল ফোন সিমের প্রকৃত মালিক হলেন ওই চক্রের সদস্য হাজারীবাগের বিলকিস, আকলিমা ও জানু বেগম, চট্টগ্রামের মো. জুয়েল, মাদারীপুরের আলমাস হোসেন বিপ্লব, কক্সবাজারের আবু বাশার, মানিকগঞ্জের লাল মিয়া ও নুরুল হক। তাঁদের সিম ব্যবহার করে গত পাঁচ বছরে এক হাজারের বেশি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর কাছ থেকে চক্রটি হাতিয়ে নেয় কয়েক কোটি টাকা। এর মধ্যে চক্রের ছয় মাসের বিকাশ হিসাব পরীক্ষা করে দেখা গেছে,  ০১৯৪৪৩০৯৪০২ নম্বর থেকে চার লাখ ৩৭ হাজার ৪৬৫ টাকা,

০১৯৯৮১১৮৭০০ নম্বর থেকে চার লাখ ৬৯ হাজার ৩৪০ টাকা, ০১৭২১৪৯৬১৯৮ নম্বর থেকে চার লাখ ২৬ হাজার ৮৭৫ টাকা, ০১৮২২৯১৭৮৫১ নম্বর থেকে চার লাখ সাত হাজার ৩৩৫ টাকা, ০১৭৫৪৯১০৪৪৪ নম্বর থেকে ছয় লাখ ৩৯ হাজার ৪৯৩ টাকা, ০১৮৪০৪৮৯৪১৭ নম্বরে চার লাখ ১৭ হাজার ২৪৩ টাকা, ০১৮২৭১৬৮৩৩৯ নম্বর থেকে তিন লাখ চার হাজার ৫৮৫ টাকা, ০১৮৩২৮৯৪৭০৯ নম্বর থেকে তিন লাখ ৯৭ হাজার ২৪৩ টাকা, ০১৬১০০৭১১১৮ নম্বর থেকে চার লাখ ১৯ হাজার ১৫৫ টাকা এবং ০১৭৮৯৫৩৯১৪০ নম্বর থেকে দুই লাখ ৬২ হাজার ৮৯২ টাকা হাতিয়ে নেয় চক্রের সদস্যরা। এভাবে বিভিন্ন ব্যক্তির নামে রেজিস্ট্রেশন করা ১১টি বিকাশ হিসাবের মাধ্যমে গত বছরের ১ আগস্ট থেকে ছয় মাসে ৪৬ লাখ ৯ হাজার ৯২২ টাকা হাতিয়ে নেয় চক্রটি। এরইমধ্যে ওই সরকারি চাকুরেদের অনেকের নাম পেয়ে যাচাই-বাছাই করছেন র‌্যাব, পুলিশ ও দুদকের তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। প্রতারকচক্র সিরাজুল ইসলাম আবার কখনো সুশান্ত কুমার বর্মণ আবার কখনো দুদকের শীর্ষপর্যায়ের কর্মকর্তা বলে পরিচয় দিত। তাদের হুমকি পেয়ে অনেক কর্মকর্তা ‘ঘুষ’ দিয়ে দুর্নীতির মামলা ও হয়রানি থেকে রক্ষা পাওয়ার অনুরোধ জানাতেন। সেই সুযোগে প্রতারকচক্র বিকাশ নম্বর দিয়ে মোটা অঙ্কের ‘ঘুষ’ দাবি করত। তারা বলত, ঘুষের টাকা পেলে দুর্নীতি মামলা খারিজ বা নথিভুক্ত করে দেওয়া হবে। এতেই খুশি হতেন দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা।



সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net