তাজা খবর:

দূরপাল্লার যানবাহনে বিকল্প চালক রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর                    বগুড়ায় অস্ত্রের মুখে সাংবাদিক অপহরন ৭ ঘন্টা পর মুক্তি                    এডিস মশার বিস্তার ঠেকাতে ডিএসসিসির অভিযান                    রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের সহায়তায় আরও টাকা দিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া                    নাইজেরিয়ায় কৃষক ও পশুপালকদের ব্যাপক সংঘর্ষে নিহত ৮৬                    সৌদি আরবে মিসাইল হামলা                    টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু ৬                    আবারও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট হলেন এরদোয়ান                    গাজীপুরে বিধি লঙ্ঘনে ‘গা’ নেই ইসির                    পোল্যান্ডকে বিদায় করে টিকে রইল কলম্বিয়া                    
  • সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮, ১১ আষাঢ় ১৪২৫

ছোট রণবীরের হেয়ার স্টাইল দেখে কি বললেন দীপিকা?

ছোট রণবীরের হেয়ার স্টাইল দেখে কি বললেন দীপিকা?

স্টাইলিশ তারকা হিসেবে রণবীর সিং নজর কেড়েছেন অনেকেরই। অদ্ভুত-অদ্ভুত সব পোশাক খুব অনায়েসে

স্বপ্নে নিজের অথবা অন্যের মৃত্যু দেখছেন? কী ইঙ্গিত জেনে নিন

স্বপ্নে নিজের অথবা অন্যের মৃত্যু দেখছেন? কী ইঙ্গিত জেনে নিন

স্বপ্নে মৃত্যু আমরা অনেকেই দেখে থাকি। এই স্বপ্ন ভয় ও দুশ্চিন্তা উদ্রেক করলেও

টাকার চিন্তা আপনার যৌনজীবনে প্রভাব ফেলতে পারে

টাকার চিন্তা আপনার যৌনজীবনে প্রভাব ফেলতে পারে

কথায় আছে ‘অর্থই সব অনর্থের মূল’। আবার এই অর্থই আপনাকে চিন্তামুক্ত রাখতে পারে।

ভুল ‘খবর’

ভুল ‘খবর’

‘নারীদের স্তনের দিকে টানা ১০ মিনিট তাকিয়ে থাকলে পুরুষের আয়ু বাড়ে গড়ে পাঁচ

বকশীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থানীয় এমপির ইন্ধনে নৌকা ভরাডুবি

এফএনএস (এসএম আবদুল হালিম; জামালপুর) :

29 Dec 2017   02:17:41 PM   Friday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 বকশীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থানীয় এমপির ইন্ধনে নৌকা ভরাডুবি

 বকশীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ দলীয় কোন্দলে প্রার্থী শাহীনা আক্তার শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছেন। জয়ের নাগাল পাওয়া দূরে থাক নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীও হতে পারেনি। জয়ের পথে এগিয়ে রয়েছেন স্থানীয় এমপি সমর্থিত স্বতন্ত্র বিদ্রোহী প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগর। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বিএনপি প্রার্থী ফখরুজ্জামান মতিন। বর্তমানে একটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ায় ফলাফল ঘোষণা করা সম্ভব হয়নি। তবে বেসরকারী ফলাফল বিশ্লেষণ করে আওয়ামী লীগের সমর্থকরা বলছেন, বকশীগঞ্জে নৌকার ভরাডুবি স্থানীয় এমপির অসহযোগিতা এবং পরোক্ষ ইন্ধনের কারণে।
বকশীগঞ্জ পৌরসভার এটাই ছিল প্রথম নির্বাচন। ফলে নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জয়ের সম্ভাবনা ছিল প্রায় শতভাগ। কিন্তু পছন্দের প্রার্থী মনোনয়ন না পাওয়াতে সংক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। উপরন্তু লোকাল এমপি আবুল কালাম আজাদের আশীর্বাদপুষ্ট বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী বড় বাধা হয়ে দাঁড়ান। এর ফলে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের পুঞ্জিভুত ক্ষোভ ও হতাশার প্রতিফলন ঘটেছে ব্যালটের মাধ্যমে। সেই ক্ষোভের আগুনে ভাগ্য পুড়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর। অন্য দিকে স্থানীয় এমপির আশীর্বাদে এবং সমর্থনে জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌছে গেছেন বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগর।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সুপারিশ উপেক্ষা করে মনোয়ন দেয় শাহীনা আক্তারকে। বকশীগঞ্জের মেয়ে হলেও বৈবাহিক সূত্রে তার শ্বশুড়বাড়ি কুষ্টিয়া এবং ব্যবসায়িক কারণে ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করার কারণে এলাকায় তিনি মোটেও পরিচিত ছিলেন না। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে মনোনয়ন পাওয়ার পর। সাধারণ ভোটারদের কাছেও ছিলেন সম্পূর্ণরূপে একজন অপরিচিত মুখ। এমন জন জনবিচ্ছিন্ন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়াতে দলের ভেতর বিদ্রোহের দাবানল জ¦লে উঠে।
মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ৬ জন প্রার্থী। এদের মধ্যে ৪ জন হলেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের। বাকী দুই জনের মধ্যে একজন ছিলেন বিএনপি এবং অন্য জন ছিলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রার্থী। জেলা আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী দুই জন স্বতন্ত্র প্রার্থীকে দল থেকে বহিষ্কার করে। কিন্তু লোকাল এমপির আশীর্বাদপুষ্ট বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগরকে সাংগঠনিক জটিলতার কারণে বহিষ্কার করা সম্ভব হয়নি। তিনি হলেন বকশীগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক। কেন্দ্রীয় যুবলীগ তার ব্যাপারে কোন সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। উপরন্তু যুবলীগ এবং ছাত্রলীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীর হয়ে মাঠে নামে।
বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগর একসময় বকশীগঞ্জ উপজেলা যুবদলের সভাপতি ছিলেন। লোকাল এমপির হাত ধরে তিনি আওয়ামী লীগে যোন দেন এবং পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক পদপ্রাপ্ত হয়ে এমপির আশীর্বাদপুষ্ট নেতা হিসাবে পরিচিতি লাভ করেন। তিনি এমপির সমর্থিত প্রার্থী হওয়াতে দলের সুবিধা ভোগী বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীরা বুকে নৌকার ব্যাজ ধারণ করে ভেতরে ভেরতে বিদ্রোহী প্রার্থীর হয়ে কাজ করেছেন। জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে লোকাল এমপির দূরত্ব এবং দ্বন্দ্বের জেরে বলি হলেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহীনা আক্তার। দলীয় প্রার্থীর পক্ষে স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং জেলা আওয়ামী লীগ সরব ভূমিকা পালন করলেও নিষ্ক্রিয় ছিলেন লোকাল এমপির সমর্থকরা। এতে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ভোট গ্রহণের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগ ভোটারদের মনোযোগ আকর্ষণের জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করেছেন এবং দলীয় প্রার্থীকে জয়ী করতে তৎপর ছিলেন। তথাপি উল্টো প্রতিক্রিয়া হয়েছে। ফলে হেরে গেছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহীনা আক্তার এবং লোকাল এমপির সমর্থিত বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম সওদাগর পৌছে গেছেন জয়ের দ্বারপ্রান্তে।
নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, মোট ১২টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি কেন্দ্রের ফলাফল পাওয়া গেছে, তাতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহীনা আক্তার পেয়েছেন ৫ হাজার ১শ ৬০ ভোট, বিএনপি প্রার্থী ফখরুজ্জামান মতিন পেয়েছেন ৭ হাজার ৭ শ ৫ ভোট এবং বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী পৌর যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম সওদাগর পেয়েছেন ৮ হাজার ৫শ ৯৯ ভোট। অর্থাৎ বিএনপি প্রার্থীর চেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ৮শ ৯৪ বেশী ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। যে কেন্দ্রটি স্থগতি রয়েছে তার ভোট হলো ১ হাজার ৫শ ২৮ ভোট। কেন্দ্রটি আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহীনা আক্তারের নিজস্ব এলাকার। ওই কেন্দ্রের সব ভোটও যদি তিনি পান তাহলেও তার জয়ের কোন সম্ভাবনা নেই। সেখানে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর সুদূঢ় অবস্থানের কারণে বিএনপি প্রার্থীর একক ভোট পেয়ে জয়ের সম্ভাবনাও একেবারের ক্ষীণ বলে মনে করা হচ্ছে।
উল্লেখ্য যে, বকশীগঞ্জ পৌরসভার মোট ভোটারের সংখ্যা ৩০ হাজার ৫শ ৯১ জন। এর মধ্যে ১৫ হাজার ৫শ ২১ জন হলেন নারী ভোটার। আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী একজন নারী হওয়া সত্ত্বে নারী ভোটারদের মন জয় করতে পারেন নি। নারী ভোটাররা তাকে স্থানীয় নন বলে গ্রহণ করেন নি। তদুপরি বিদ্রোহী প্রার্থী যুবলীগ নেতার বাধা অতিক্রম করা তার পক্ষে সম্ভব হয়নি। ভোটগ্রহণ শুরুর আগে থেকেই নৌকাডুবির সমূহ সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল। শেষ মুহূর্তে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় উঠে আসেন এমপি সমর্থিত বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী বনাম বিএনপি প্রার্থী। মূলত এই দুই প্রার্থীর মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি এবং ব্যাপক প্রচারণায় ঘাম ঝরিয়েও শেষ পর্যন্ত নৌকাডুবি ঠেকানো যায়নি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net