তাজা খবর:

কলারোয়ায় জমি নিয়ে সংঘর্ষ,আনছার সদস্য সহ ৫ জন জখম                    রাজশাহী জামায়াতের জেলা আমিরসহ গ্রেফতার ৭২                    প্রধানমন্ত্রী ও জাপা চেয়ারম্যান ভালোবাসেন বলে আমি মহাজোট প্রার্থ                    জাতিকে মেধা শূণ্য করতেই বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল: স্পীকার                    ধানের শীষের প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে: মির্জা ফখরুল                    ফেনীতে বাস চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই সহদোর নিহত                    ট্রেনের ছাদে থাকা যাত্রীদের হার্ডিঞ্জ ব্রীজের সাথে ধাক্কা, নিহত ৩                    কাটাতারের বেড়াটা ছুঁতে দিলো না মাকে....                    নড়াইল-২ আসনে আ`লীগের প্রার্থী মাশরাফি-বিন-মর্তুজার কর্মী সমাবেশ                    সিরাজদিখানে দর্জীর লাশ উদ্ধার, পুলিশ বলছে হত্যাকান্ড                    
  • মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩ পৌষ ১৪২৫

নন্দীগ্রামে আবারো ১৯টি খরের গাদায় আগুন দিল দূর্বৃত্তরা

নন্দীগ্রামে আবারো ১৯টি খরের গাদায় আগুন দিল দূর্বৃত্তরা

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় একরাতে ১৯টি খরের গাদায় আগুন দিল দূর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে ফায়ার

টাকা ছাড়া কাজ হয় না যশোর বিআরটিএ অফিসে

টাকা ছাড়া কাজ হয় না যশোর বিআরটিএ অফিসে

যশোর বিআরটিএ অফিসের দুর্নীতি চরম আকার ধারণ করেছে। ঘুষ ছাড়া মোটরযান রেজিস্ট্রেশন ও

লক্ষ্মীছড়ি জোনের তত্বাবধানে চক্ষু শিবির ও শীত বস্ত্র বিতরণ

লক্ষ্মীছড়ি জোনের তত্বাবধানে চক্ষু শিবির ও শীত বস্ত্র বিতরণ

সুস্থ্য চোখে দেখি সুন্দর পৃথিবী এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে খাগড়াছড়ির জেলার লক্ষ্মীছড়ি জোনের

কাপাসিয়ায় রাজ্জাক বিড়ি কোম্পানির গোডাউনে রহস্যজনক আগুন

কাপাসিয়ায় রাজ্জাক বিড়ি কোম্পানির গোডাউনে রহস্যজনক আগুন

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় রাজ্জাক বিড়ি কোম্পানির মালিকানা নিয়ে দ্বন্দের জেরে গত রোববার রাতে গোডাউনে

সাংবাদিক বিরোধী অর্থমন্ত্রী বনাম পাকিস্তানের আমলা

মোমিন মেহেদী

20 Aug 2017   08:05:40 PM   Sunday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 সাংবাদিক বিরোধী অর্থমন্ত্রী বনাম পাকিস্তানের আমলা

সারাদেশে যখন বন্যা দূর্গত মানুষের কান্না; তখন আমাদের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত পত্রিকার পাতায় বন্যার সংবাদ দেখতে চান না। তিনি দেখতে চান বন্যা পীড়িত মানুষের উত্তরণের সংবাদ। চাই আমরা এমন উত্তরণ, যে উত্তরণ সত্যিকার্থেই মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণের পর এগিয়ে যাবে বহুদূর। যদি তা না হয়; তাহলে আর আমজনতার ধৈয্য ধরে রাখার পর্যায়ে থাকবে না; এটাই স্বাভাবিক।
প্রিয় কবি, প্রিয় অভিভাবক, প্রিয় শিক্ষক শামসুর রাহমান নিন্দা আর হতাশা মিশ্রিত ভাষায় এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে লিখেছিলেন- উদ্ভট উটের পিঠে চলেছে স্বদেশ। তিনি এখন বেঁচে থাকলে হতো এরচে অনেক নিন্দা-ঘৃণা নিয়ে নিয়ে অন্য কোন কবিতা লিখতেন। যখন অর্থমন্ত্রীর সাফ কথা ‘সাংবাদিকদের জন্য ওয়েজবোর্ডের প্রয়োজন নেই।’ কানে যেতো; তখন তিনি হয়তো শুধু কবিতা লিখেই থেমে থাকতেন না, একসময়ের পাকিস্তান সরকারের কর্মকর্তা ও বর্তমান স্বাধীন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে ডেকে নিয়ে দুএকটা কথাও শুনিয়ে দিতেন। কেননা, কবি শামসুর রাহমান যতটা কবি ছিলেন, ততটাই সংগ্রামী-সাহসী ছিলেন। আজ তিনি বেচে থাকলে ‘সাংবাদিকদের জন্য ওয়েজবোর্ডের প্রয়োজন নেই’ বলে মন্তব্য করার আগেই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত-এর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাধ্যমে সতর্ক করে দিতেন।
আজ তিনি নেইদ হয়তো একারনেই মন্ত্রী পরিষদে স্থান পেয়েছেন পাকিস্তান সরকার, এরশাদ সরকার সহ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সরকারের মন্ত্রী পরিষদে স্থান পাওয়া আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি এমনই এক অথর্ব মন্ত্রী যে, জাতির বিবেক হিসেবে বিশ্বজুড়ে আলোচিত সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। বলেছেন, নবম ওয়েজবোর্ড নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এটা টোটালি আননেসেসারি। সরকারি চাকরিজীবীদের চেয়ে সাংবাদিকদের বেতন বেশি। সভার বিষয়বস্তু ছিল সাংবাদিকদের নবম ওয়েজবোর্ড করার জন্য কী কী করতে হবে। আমাদের একটা ফিলিং হলো, এখন আমরা সিদ্ধান্ত নেব শর্টলি, যে সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড ইজ আননেসেসারি, টোটালি আননেসেসারি। বিকজ ইওর স্যালারি স্কেলস আর বেটার দেন গভর্নমেন্ট স্যালারি স্কেলস। তাহলে কেন আমরা যাব? আমরা বর্তমান যে তথ্য পেয়েছি, তাতে আপনাদের স্যালারি স্কেলস আর বেটার দেন গভর্নমেন্ট স্যালারি স্কেলস। সরকারি চাকরিজীবীরা পেনশন এবং প্রভিডেন্ট ফান্ড পান- সাংবাদিকরা জানালে অর্থমন্ত্রী বলেন, ইউ হ্যাভ প্রভিডেন্ট ফান্ড। প্রভিডেন্ট ফান্ড আছে।
সাংবাদিকদের সাথে এমন নিকৃষ্টতম মানষিক বিকারগ্রস্থতার বিষয়টি অর্থমন্ত্রী শেয়ার না করলেও পারতেন। এড়িয়ে গেলেই পারতেন নিজের আর সাংবাদিকের মধ্যে থাকা দূরত্ব বিষয়টিকে সামনে না এনে। অর্থমন্ত্রীর এমন নির্লজ্জ বেহায়া টাইপের কথা বলার সময়ে একজন সাংবাদিক বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাস করে একজন ছেলে ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ঢোকে আট হাজার টাকা স্যালারিতে, সরকারি চাকরিতে তো এত কমে ঢোকে না? তখন অর্থমন্ত্রী বলেন, `না। আমাদের মাস্টার্স পাস করা পিয়নও আছে। ১৬ হাজার টাকা বেতন পায়। আপনাদের পাঁচটি গ্রেড আছে। সর্বনিম্ন ২০ হাজারের কোটায়। ইওর স্যালারি স্কেলস আর হায়ার দেন গভর্নমেন্ট স্যালারি স্কেলস।` এ সময় সাংবাদিকরা `না`, `না`, বলে প্রতিবাদ জানান। সাংবাদিকদের থামিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, `আপনারা একজন বা দুজন দায়িত্ব নেন। আমাকে আপনাদের পাঁচটি গ্রেডের তথ্য দেন। ৪২টি ডেইলি নিউজ পেপার আছে ঢাকায়। সাংবাদিকরা বলেন, না। তখন অর্থমন্ত্রী জানতে চান কতটি দৈনিক কাগজ আছে? একজন সাংবাদিক বলেন, ২০১টি। উচ্চস্বরে রাগান্বিত হয়ে তখন অর্থমন্ত্রী বলেন, `রাবিশ। দ্যাট মাই আনসার টু ইউ, রাবিশ। ২০১! ১৫টা হবে কী না আমার সন্দেহ আছে। ২০টা হতে পারে বড়জোর। এই যে পাঁচশ কতটা খবরের কাগজ আছে। অল বোগাস। ওদের জন্য বেতন স্কেল ঠিক করব? নো! আই উইল ফিক্সড দ্য বেতন স্কেল ফর দ্য ফিফটিন অর টুয়েন্টি নিউজ পেপার্স, যেখানে মানুষজন কাজ করে এবং এগুলোতে কী স্যালারি স্কেল আছে আমাকে একটা দেন। আমাদের ধারণা হলো সাংবাদিকদের জন্য কোনো ওয়েজবোর্ডের প্রয়োজন নেই।
শেষ কথা এটাই নয়; তিনি ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া প্রসঙ্গে বলেন, তাহলে কয়েকটা টেলিভিশন মরে যাবে। হুইচ ইজ ডিজ্যারবল ফর দ্য কান্ট্রি। দুনিয়ার কোনখানে এতগুলো টেলিভিশন স্টেশন আছে, কোন দেশে? আমি কতবার বলেছি এতগুলো ব্যাংক আছে, এতগুলো টেলিভিশন স্টেশনস আছে। এগুলো থাকবে না। অটোমেটিক্যালি এগুলো মরে যাবে।
মেরে ফেলার পরিকল্পনার রাজনীতিতে তৈরি হওয়া আবুল মাল আবদুল মুহিতকে যেই গণমাধ্যম মনের মাধ্যরি মিশিয়ে লিখে লিখে ফুলিয়ে ফাপিয়ে রাখছেন, তারাই আজ যখন ক্ষতিগ্রস্থ হবেন; তখন নতুন প্রজন্মের প্রতিধিেিদর কেবলই চেয়ে চেয়ে দেখতে হবে, আর ভাবতে হবে যে, যদি আমরা সবাই রাবিশ আর বোগাস হই তিনি কি? যিনি পাকিস্তান আমলে আমলা, স্বেরাচার আমলে মন্ত্রী আর এখন নীতিবিবর্জিত অন্ধকারের কৃষক!
অবশ্য অর্থমন্ত্রীর পাশে দাঁড়ানো তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর কাছে সেদিন প্রশ্ন করা হয় তাহলে কেন এগুলোর অনুমোদন দেয়া হচ্ছে- তখন তথ্যমন্ত্রী বলেন, `ইলেকট্রনিক মিডিয়ার জন্য এখন পর্যন্ত কোনো আইন তৈরি হয়নি। সুতরাং ওয়েজবোর্ড হচ্ছে খবরের কাগজের জন্য। সেই ব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে খবরের কাগজের মালিকদের সঙ্গে বসেছিলাম। সব সংবাদপত্র শিল্পের সমস্যা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।` সিদ্ধান্তহীনতার রাস্তায় অগ্রসর হতে হতে ক্লান্ত আজ বাংলাদেশ-বাংলাদেশের মানুষ। তারা আর সিদ্ধান্তহীনতায় থাকতে চায় না। চায় অবিরত এগিয়ে রচলার গল্প চলুক, সবাই বলুক দ্য বিউটিফুল, দ্য পাওয়ার অথবা নাইস। কেননা, নতুন প্রজন্ম কোন রাবিশ, বোগাস বা করাপটেড-এর পক্ষে না...
আমাদের অর্থমন্ত্রীর বয়স ৮০ অতিক্রম করেছেন অরেক আগে। তার যৌবনেই ভাষা আন্দোলন হয়েছে। কিন্তু তিনি তবুর ইংলিশে কথা বলেন। যেভাবে বলেছেন, আমরা বিভিন্ন তথ্য আহরণ করেছি এবং অত্যন্ত দুঃখজনক তথ্য পাচ্ছি। পাঁচশ কাগজ আপনারা এনলিস্ট করেন, দে ডু নট এক্সজিস্ট। ইটস অ্যা ফলস নাম্বার এবং সব চুরি করে।                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                  `নো নো নো। ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকস সে, ফোর হান্ড্রেড অ্যান্ড ফোরটি নিউজ পেপারস ইন ঢাকা। `আমার ধারণা দরকার নেই। আমি বললাম সিদ্ধান্ত হয় নাই, আমার ধারণা এটি আননেসেসারি। কতটা প্রফেশন আছে দেশে? কার জন্য ওয়েজবোর্ড করি? গভর্নমেন্ট সার্ভেন্টস ছাড়া আর কারও জন্য করা হয় না। মার্কেট ডিটারমেন্ট করে। মার্কেট যদি ভালোভাবে ডিটারমেন্ট করে, উই ডোন্ট ইন্টারভেন। আমরা একবার গার্মেন্ট ইন্ডাস্ট্রিতে ইন্টারভেন করেছিলাম, বিকজ ইট ইজ পুওর। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সেটাকে একটা লেভেলে নিয়ে গেছেন, এরপরে আর ইন্টারভেন করতে হয় না। মার্কেট স্টেট।
কেন ওয়েজবোর্ড চাচ্ছেন না? জানতে চাইলে আবারও অর্থমন্ত্রী বলেন, `এই যে এটা আননেসেসারি। বিকজ ইউর স্যালারি স্কেলস আর মাচ বেটার দেন দ্য গভর্নমেন্ট স্যালারি স্কেলস। ইট ইজ আননেসেসারি। একই সাথে তিনি বলেছেন, অফকোর্স আই অ্যাম সিটিং উইথ দেম। আই থিংক, আমার (সাংবাদিক) স্যালারি স্কেল কি আছে, ইফ আই ফাইন্ড ইট ইজ অ্যাভাব দ্য স্যালারি স্কেল অব গভর্নমেন্ট, আই শ্যাল নট কনস্টিটিউট অ্যাট ওয়েজবোর্ড।
এমন এক কথা বলা মন্ত্রীকে নিয়ে আর যাই হোক সম্মানজনক কথা ভাবার মত দিন আর নেই। মানুষ এখন অনেক সচেতন। তারা কবি নজরুলের সংকল্প কবিতার মত করে বিশ্বকে মুঠো পুরে দেখতে শিখেছে। আর তাই সাংবাদিক ও সংবাদমাধ্যম বিরোধীকে নিয়ে একজন কবি লিখেছেন- অনেক কথার রাজা তিনি কাজের বেলা জিরো/ এমন মন্ত্রী চালায় স্বদেশ নব্বইতেও হিরো/ এমন হিেেরার কপালে লন ঝামা ঘষে দেই/ যেই হিরো আজ কষ্ট দিতে বিন্দু বসে নেই/ চলুন সবাই চলুন ‘ম্যাড মিনিস্টার’ বলুন/ চলুন সবাই চলুন ব্যাড মিনিস্টার বলুন...

মোমিন মেহেদী : কলামিস্ট এবং চেয়ারম্যান, নতুনধারা বাংলাদেশ-এনডিবি

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net