তাজা খবর:

রাজশাহীতে স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ তিনজনের ফাঁসি                    চারঘাটে আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত চারজন                    দৌলতপুরে বালিভর্তি ট্রলির ধাক্কায় পথচারী নিহত                    রাজশাহীতে ট্রেনের নিচে কাঁটা পড়ে রেলওয়ে কর্মকর্তা নিহত                    উলিপুরে শীতের আগুন পোয়াতে গিয়ে পুড়ে গেল দুঃস্থ প্রসুতি                    ডোমারে বালু মিশ্রিতএক শত বস্তা নকল সার উদ্ধার                    রাজশাহীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত                    আখেরি মোনাজাতে শেষ ইজতেমার প্রথম পর্ব                    সারা দেশে ঘন কুয়াশা, পারাপারে বিঘ্ন                    মুরগি ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে লাখ টাকা ছিনতাই                    
  • বুধবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৮, ৩ মাঘ ১৪২৪

গাংনীতে অস্ত্র ও গুলি সহ চাঁদাবাজ গ্রেফতার

গাংনীতে অস্ত্র ও গুলি সহ চাঁদাবাজ গ্রেফতার

 মেহেরপুরের গাংনীতে অস্ত্র ও গুলি সহ জুয়েল হোসেন (৩৫) নামের এক চাঁদাবাজ কে

মুক্তাগাছায় বন্ধুদের ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র নিহত

মুক্তাগাছায় বন্ধুদের ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র নিহত

 মুক্তাগাছায় বন্ধুদের ছুরিকাঘাতে এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে। গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে

১১ মিলিয়ন ডলার উপার্জন করল ছয় বছরের শিশু!

১১ মিলিয়ন ডলার উপার্জন করল ছয় বছরের শিশু!

অনলাইনে অর্থ উপার্জনের বিষয়টি নিয়ে অনেকেই চেষ্টা করেন। কিন্তু এ কাজটিতে সবাই যেমন সফল হতে

মাংশের টুকরোত আল্লাহর নাম

মাংশের টুকরোত আল্লাহর নাম

কোন কাল্পনিক গল্প নয়, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য পাবনার আটঘরিয়ায় কোরবানির মাংশের একটি টুকরোও

শৈত্য প্রবাহের তীব্রতায় কাঁপছেন শতবর্ষি বৃদ্ধা আয়নবী বেওয়া

এফএনএস (জিন্নাতুল ইসলাম জিন্না; লালমনিরহাট) :

14 Jan 2018   07:58:03 PM   Sunday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 শৈত্য প্রবাহের তীব্রতায় কাঁপছেন শতবর্ষি বৃদ্ধা আয়নবী বেওয়া

লালমনিরহাটের আদিতমারী বুড়ির বাজারের একটি মার্কেটের বারান্দায় কিছু খড় বিছিয়ে শীত নিবারনের চেষ্টা করছেন শতবর্ষি বৃদ্ধা আয়নবী বেওয়া। শৈত্য প্রবাহের তীব্রতায় পাতলা একটি সুয়েটার আর একটা ছেড়া শাড়ি পড়ে ঠান্ডায় থরথরে কাঁপছেন। নেই কোন শীতবস্ত্র। মার্কেটের সব দোকান পাট বন্ধ হলে তবেই ঘুমিয়ে পড়বেন খড়ের বিছানার উপর।
রবিবার (১৪ জানুয়ারী) রাত সাড়ে ৭টার দিকে সরেজমিনে গেলে কথা হয় তার সাথে এ প্রতিনিধির।
আয়নবী লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের বারঘড়িয়া গ্রামের মৃত আনসার আলীর স্ত্রী। ভাদাই স্কুলের পুবেই থাকেন আয়নাল হকের মা।
আয়নবী বেওয়া এ প্রতিনিধিকে জানান, ছেলের বউয়ের সাথে অভিমান করে ৫/৬ বছর ধরে স্কুল, কলেজ ও বাজারের বারান্দায় এভাবেই দিন পার করছেন। স্বামীর সংসারে গরু আর আবাদি জমি নিয়ে ছিল তার সুখের সংসার। কিন্তু স্বামী বার্ধক্যে পৌছলে জায়গা জমি বিক্রি করে ৭/৮ বছর আগে মারা যান। ছেলে আয়নাল হক ভাদাই স্কুলের পার্শে¦ জমি নিয়ে বউসহ আলাদা থাকেন।
এরপর ভুমিহীন বৃদ্ধা আয়নবী বেওয়া ভিক্ষা করে তার জ্যাঠাত ভাই আনছার আলীর দেয়া জমিতে একটি ছায়লা ঝুপড়ি ঘরে থাকতে শুরু করেন। কয়েক বছর আগে রমজান মাসে ছেলে আয়নাল হকের বাড়িতে থেকে নিজের ভিক্ষে করা আয়ে খেয়ে রোজা করতে চেয়েছিলেন বৃদ্ধা আয়নবী। কিন্তু ছেলের বউ মহিতন বেগম তাকে দ্রুত বাড়ি থেকে সড়ে যেতে বললে অভিমান করে চলে আসেন বলে যোগ করেন আয়নবী বেওয়া।
সেই থেকে স্কুল কলেজ ও বিভিন্ন বাজারের বারান্দায় বসবাস শুরু করেন। স্থানীয়রা যা দেন তা খেয়েই ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। তার সম্ব^ল বলতে রয়েছে বস্তার ভিতর রাখা পুরাতন কিছু কাপড় আর সামান্য কিছু চাল। যা ওই বারান্দায় রেখে পাশ্ববর্তিদের কাছে হাত পেতে খেয়ে নেন। সন্ধ্যায় ফিরে আসেন সেই খড়ের বিছানায়। রাত গভির হলে বাজারের লোকজন চলে গেলে তবেই ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। মানুষ উৎপাত না করলেও রাতে মাঝে মধ্যে কুকুর বিড়ালরা তার পুটলি গুলো নিয়ে টানা টানি করে।
আয়নবী বেওয়া আরও জানান, ঠান্ডায় কষ্ট হলেও এ পর্যন্ত কেউ তাকে একটি কম্ব^ল দেয় নি। কে দিবে কম্ব^ল সেটাও তার অজানা। বয়স্ক ভাতার জন্য মহিষখোচা ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলামের কাছে গিয়েছিলেন। কিন্তু জোটে নি বয়স্ক ভাতার কার্ড। ছেলে তার খোজ খবর না নিলেও মাঝে মধ্যে তাকে দেখতে যান আয়নবী বেওয়া। ছেলের উপর ক্ষোভ নেই। তবে ছেলের বউকে শাস্তি দিতে চান এ বৃদ্ধা।
বার্ধক্যের কারনে শরীরে নানা রোগ বাসা বাঁধলেও শুধু গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ খান নিয়মিত। আর ঔষধ ফ্রিতে নেন ওই বাজারের হাসান আলীর ফার্মেসী থেকে। সকলের কাছে নয় প্রয়োজন হলে ওই বাজারের পরিচিত কয়েক জনের কাছে হাত পাতেন এ বৃদ্ধা। মারা গেলে কাপড়টা দশের লোকজন (সমাজের দায়িত্বশীলরা) দিবে না? প্রশ্ন তুলেন বৃদ্ধা আয়নবী বেওয়া।
বুড়ির বাজারের অনেক ব্যবসায়ী জানান, দীর্ঘ দিন ধরে এ বাজারেই রয়েছেন এ বৃদ্ধা। কিছু দিন আদিতমারী জিএস উচ্চ বিদ্যালয়ের বারান্দায় ছিলেন। শীতের আগে চলে আসেন এ মার্কেটে। বারান্দার মেঝেতে কাঁপছিলেন। এটা দেখতে পেরে বাজারের কয়েকজনের উদ্যোগে একটু খড় এনে বিছানা করে দেন। বারান্দায় থাকলেও পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখেন। নামাজ বন্দেগিও করেন ঠিকঠাক। তবে ছেলের কাছে বা সরকারী কোন খাস জমিতে এ বৃদ্ধার স্থায়ী ঘর করে দেয়ার দাবি জানান তিনি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net