তাজা খবর:

গজারিয়ায় সিএনজি পাম্পে আগুন, আহত-৪                    তাস খেলতে বসতে না দেয়ায় শিক্ষার্থীদের মারধর করেছে ছাত্রলীগ                    জালনোট কারখানার সন্ধান বিপুল পরিমাণ জাল টাকা-রুপিসহ ব্যবসায়ী আটক                    ডিমলায় প্রতিমা ভাংচুড়ের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে পুলিশ সুপার                    কলারোয়ায় আগুনে পুড়ে ৪টি দোকান ভস্মীভূত                    রাসিক নির্বাচনের ৩৭দিন পর ফল বাতিল চেয়ে বুলবুলের মামলা                    চৌগাছায় প্রসূতির পেটে গজ-ব্যান্ডেজ রেখে সেলাইয়ের অভিযোগ                    চার পিস ইয়াবা হয়ে গেল ১৪ পিস!                    রাউজানে গণপিটুনিতে ২ চোর মারা গেছে                    নানা সমস্যায় জর্জরিত বগুড়ার সান্তাহার রেলওয়ে জংশন স্টেশন                    
  • শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

একই পরিবারের পাঁচজন বিরল প্রকৃতির রোগে আক্রান্ত

একই পরিবারের পাঁচজন বিরল প্রকৃতির রোগে আক্রান্ত

সোনারগাঁয়ে একই পরিবারের পাঁচজন বিরল প্রকৃতির রোগে আক্রান্ত হয়ে পরেছে। অর্থাভাবে সুচিকিৎসা নিতে

সুজানগরে বহুমুখী খামার করে স্বাবলম্বী যুবক মামুন

সুজানগরে বহুমুখী খামার করে স্বাবলম্বী যুবক মামুন

সুজানগরে বহুমুখী খামার করে মামুন হোসেন নামে এক যুবক স্বাবলম্বী হয়েছেন। তিনি উপজেলার

বরিশালে ভাসমান পাটের হাট ॥ অপার সম্ভাবনা

বরিশালে ভাসমান পাটের হাট ॥ অপার সম্ভাবনা

ভৌগলিক অবস্থানগত কারণে প্রায় ৫০ বছরের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে জেলার তিনটি উপজেলার সীমান্তবর্তী

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে স্কুল ছাত্রী ইতি

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে স্কুল ছাত্রী ইতি

অর্থাভাবে বিনাচিকিৎসায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে বেঁচে থাকার জন্য ছটফট করতে থাকা মেধাবী স্কুল

ঝিনাইদহের নীলকুঠি ও অভিশপ্ত নীল চাষের কথা

এফএনএস (টিপু সুলতান; কালীগঞ্জ, ঝিনাইদহ)

17 Feb 2018   07:04:18 PM   Saturday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 ঝিনাইদহের নীলকুঠি ও অভিশপ্ত নীল চাষের কথা

শত শত বছরের শোষক গোষ্ঠী ইংরেজদের পতন ঘটেছে বহু পূর্বেই। তবে তাদের শোষণের নানা স্মৃতি চিহ্ন, অস্তিত্ব আজও বহন করে চলছে এদেশের বিভিন্ন এলাকা। এসব এলাকার মধ্যে ঝিনাইদহ অঞ্চল অন্যতম।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ঝিনাইদহের মাটি চাষাবাদ তথা নীল চাষের জন্য তৎকালীন সময়ে সর্বাধিক উপযুক্ত ছিল। ফলে এখানে প্রত্যক্ষভাবে আগমন ঘটে ইংরেজদের। বিভিন্ন স্থানে গড়ে তোলে নীল কুঠি। আর আজও সেই নীল চাষের স্বাক্ষ্য বহন করছে বরা এনায়েতপুর, নগরবাথান, মধুপুর, ঝিনাইদহ, হাজরাতলা, কলোমনখালী, কালীগঞ্জ, শিকারপুর, শৈলকুপার বিজুলিয়া, হরিণাকুন্ডুর জোড়াদহ, ধুলিয়া, ধাইনা, সোনাতনপুর, মহেশপুরের নদী তীরবর্তী এলাকা ও কোটচাঁদপুরের বিভিন্ন জায়গা। এসব এলাকায়  রয়েছে অভিশপ্ত নীল চাষের সাঁওতাল সম্প্রদায় সহ আদিবাসী সেই সব শ্রমিক গোষ্ঠী ও কুঠির ধবংসাবশেষ।
নীল চাষে ইংরেজ নীলকর সাহেবদের মধ্যে যাদের নাম জানা যায় তাদের মধ্যে মধুপুরের নীল কুঠির কুঠিয়াল টিসিটুইডি, কোটচাঁদপুরের নীল কুঠিয়াল সিনোলব ম্যাকলিউড, ডাম্বল, ব্রীজবেন, নিউ হাউজ সাহেবদের নাম উল্লেখযোগ্য। নীল চাষের সুবিধার্থে ইংরেজরা এ অঞ্চলের রাস্তা ঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটায়। কলকাতা থেকে ট্রেনে চুয়াডাঙ্গা ও চুয়াডাঙ্গা থেকে ঝিনাইদহ সড়ক উন্নতি ও পাকা করণ করা হয়। নীলকর সাহেবেরা বেশির ভাগ সময় এ অঞ্চলে ঘোড়ার যাতায়াত ও চলাফেরা করত।
ব্যাপক কষ্টদায়ক ও নির্যাতনমূলক নীলচাষ করতে কৃষকেরা এক পর্যায়ে অনাগ্রহ প্রদর্শন শুরু করে। ১৮৬০ সালের দিকে এ অঞ্চলে নীল চাষের বিরুদ্ধে নির্যাতিত কৃষকেরা বিদ্রোহ করে। লঞ্চ যোগে সফরের সময় হাজার হাজার কৃষক ইংরেজ ছোট লাট গ্রান্ট সাহেবকে কুমার ও কালী নদীতে ঘেরাও করে এবং নীল চাষ বন্ধের প্রতিশ্র“তি আদায় করে। সরকার ১৮৬০ সালেই নীল কমিশন গঠন করতে বাধ্য হয়। কিন্তু কয়েকবছর যেতে না যেতেই নীলকর সাহেবেরা নির্যাতনমূলক চাষ আবারও শুরু করে। ১৮৮৯ সালে শৈলকুপা উপজেলার বিজুলিয়া নীল কুঠির আশপাশের ৪৮ টি গ্রামের কৃষক একত্রিত হয়ে নীল চাষ বন্ধ করে দেয় এবং নীল কুঠি আক্রমণ করে। এসময় বিজুলিয়া কুঠির অধ্যক্ষ ছিলেন ডাম্বল সাহেব।
নীল চাষের জন্য নীলকর সাহেবেরা এ অঞ্চলে অনেকগুলো যৌথ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেছিল। এসব প্রতিষ্ঠানকে বলা হতো কনসার্ন। হাজরাপুর বা পোড়াহাটি কনসার্নের অধীনস্থ ১৪ টি নীল কুঠির অধিকারে ভূমির পরিমাণ ছিল ১৬ হাজার বিঘা। আর হরিণাকুন্ডুর জোড়াদহ কনসার্নের অধীনস্থ ৮ টি কুঠির অধিকার ভূক্ত জমির পরিমাণ ছিল ৯ হাজার ৪’শ বিঘা। জোড়াদহ কুঠির ম্যনেজার ছিলে ম্যাকুলোয়ার।
ন্যায্য মূল্য না দেয়া ও বাধ্যতামূলক নীলচাষ করানোর প্রতিবাদে এ অঞ্চলে বিভিন্ন সময় নীল চাষ করতে স্থানীয় লোকজন অনাগ্রহ প্রদর্শন ও বিদ্রোহ করতে থাকলে চতুর নীলকরেরা আদিবাসীসহ ভারতের বিহার প্রদেশের ছোট নাগপুর ও বিভিন্ন স্থানের সাওতাল সম্প্রদায় ভুক্ত অধিবাসীদের আমদানি করে শ্রমিক হিসাবে বিভিন্ন নীলকুঠিতে নিয়ে আসে। এরা বুনো ও বাগদী শ্রেণীভুক্ত। যেখানে যেখানে নীল কুঠি ছিল সেখানেই এই বুনো ও বাগদীদের বসতি এখনো লক্ষ্য করা যায়। নগর বাথান, শৈলকুপার বিজুলিয়া, চাকলা, ছালাভরাসহ অন্যান্য কুঠি এলাকাতে এই সম্প্রদায় তখন হতে বসবাস করে আসছে।
বুনোরা দীর্ঘদিন ধরে এদেশে বসবাস করলেও এদের আচার-আচরণ, হালচাল, সামাজিক কর্মপদ্ধতি, উচ্চারণ ভঙ্গি ও জীবণযাত্রার বৈশিষ্ট্য প্রমাণ করে এরা স্থানীয় নয়। এদের মধ্যে এক শ্রেণী মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে অপর শ্রেণী গাছ কাটা, মাটি কাটা ও শ্রমিকের কাজ করে। কঠিন ও পরিশ্রমী কাজ করতে এরা শারীরিকভাবে  অসুবিধা বোধ করে না। এদের অনেকেই সাপ নিয়ে ঝাপান খেলা করে। মেয়ে পুরুষ উভয়েই সমান ভাবে কাজ করতে পারে। একটি অংশ সর্দার হিসাবে পরিচিত। বাদুর, দুড়ো, কাছিম, এদের প্রিয় খাদ্য। বাঙালী হিন্দুদের মত আচার আচরণ করলেও সামাজিক ও কর্মপদ্ধতির দিক থেকে হিন্দুর সাথে এদের বেশ পার্থক্য রয়েছে। খাটো খোট্টা চেহারার বুনোরা সহজে রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়না এবং হলেও সহজে ডাক্তারের কাছে যায় না। ঝাড়, ফুঁক গাছের ডাল, বাকল ও শিকড় দ্বারা দেশীয় পদ্ধতি তৈরি ঔষুধ এদের বেশি পছন্দ। এসব সম্প্রদায়ের মানুষ কাজে কম ফাঁকি দেয়। সৎ বিনয়ী মিষ্টভাষী এদের বিশেষ গুণ। মাটির তৈরি যেন তেন প্রকারে খড়, ছন বা নারকেল পাতার ছাউনি দেয়া ঘরে এরা বসবাস করে। জেলার বিজুলিয়া নীল কুঠিতে রয়েছে প্রায় কয়েক’শ সাঁওতাল সম্প্রদায় ভুক্ত বুনো বাগদী শ্রেণী গোষ্ঠীর অধিবাসী। এই জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রার নিজস্ব কৃষ্টি কালচার সামাজিক রীতি নীতি নানা অবহেলা আর বঞ্চনার শিকারে আজ বিলুপ্তির পথে। এরা কালের স্বাক্ষী হয়ে আছে ইংরেজদের অভিশপ্ত সেই নীল চাষ আর নীল কুঠির সাথে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net