তাজা খবর:

নড়াইলে ধান ক্ষেত থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার                    কালীগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্রসহ দুই সহোদরকে অ্যাসিড নিক্ষেপ                    বগুড়ায় উপুর্যূপরি ছুরিকাঘাতে দম্পতি খুন                    নিবন্ধনের আশায় দক্ষিণ চট্টগ্রাম ছাড়ছে রোহিঙ্গারা                    দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে পারের অপেক্ষায় শত শত যানবাহন                    অভয়নগরে ভৈরব নদে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত                    যশোরের অজ্ঞাত পরিচয় তরুণীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার                    বিশ্ব জনমত ঘুরছে: কৃষিমন্ত্রী                    নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার                    কাহারোলে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাইভেট কারের চালক সহ নিহত ৩                    
  • সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ৭ কার্তিক ১৪২৪

বলিভিয়ার গোলকিপারের প্রশংসায় ব্রাজিল কোচ

বলিভিয়ার গোলকিপারের প্রশংসায় ব্রাজিল কোচ

আর্জেন্টিনার মত দুরাবস্থায় না পড়লেও বাছাইপর্বের ম্যাচে একটা ধাক্কা খেয়েছে শিরোপার অন্যতম

চিংড়ির বহু গুণ

চিংড়ির বহু গুণ

চিংড়ি শুধু সুস্বাদু খাবারই নয়, এর বহু গুণও রয়েছে। কিন্তু অনেকেরই চিংড়ির এসব গুণের কথা

তরমুজের বীজ খেলে পাবেন এই বিস্ময়কর উপকারিতাগুলো!

তরমুজের বীজ খেলে পাবেন এই বিস্ময়কর উপকারিতাগুলো!

আচ্ছা কে আমাদের শিখিয়েছে বলুন তো এটা ভাল নয়, ওটা ভাল নয়!

মাংশের টুকরোত আল্লাহর নাম

মাংশের টুকরোত আল্লাহর নাম

কোন কাল্পনিক গল্প নয়, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য পাবনার আটঘরিয়ায় কোরবানির মাংশের একটি টুকরোও

তৃণমূলের রাজনীতি এবং দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন

এ.কে.এম শামছুল হক রেনু

26 Aug 2017   08:25:53 PM   Saturday BdST
A- A A+ Print this E-mail this
 তৃণমূলের রাজনীতি এবং দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন

জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় সরকারের যে কোন পর্ষদের নির্বাচন হয়, তার বেশ আগ থেকে প্রতিটি রাজনৈতিক দল ও জোটের শীর্ষস্থানীয়রা বলতে থাকে দলের তৃণমুলের রাজনৈতিক নেতা কর্মিদের যাচাই বাছাইয়ের মাধ্যমে নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হবে। এ নির্দেশনাকে সামনে রেখেই প্রতিটি দলের ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা কমিটির মাধ্যমে হাঁক ডাক করে এ প্রক্রিয়া করাও হয়ে থাকে। অর্থাৎ কবির পংক্তিতে বলা যায়, “সূর্যি মামা জাগার আগে উঠবো আমি জেগে”। তাতে অনেক সময় তৃণমূলের নেতা কর্মিরা আপনমনের মাধুরী মিশিয়ে উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে তা করেও থাকে। অনেক সময় আলাপ আলোচনার মাধ্যমে তা করতে অপারগ হলে ব্যালটের মাধ্যমে এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে উপনীত হয়ে থাকে এবং পরিশেষে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের জন্য তৃণমূলের নেতা কর্মিদের অভিমত প্রেরণ করা হয়ে থাকে। কিন্তু লক্ষ্য করলে দেখা যায়, এই প্রক্রিয়া অবলম্বন করা হলেও বাস্তবে অনেক সময়ই দেখা গেছে কেন্দ্র তৃণমূলের নেতাকর্মিদের সিদ্ধান্তের ধারে কাছে না গিয়েও অধিকাংশ সময়ই কেন্দ্র তাদের পছন্দ মতো প্রার্থী মনোনয়ন দিয়ে শুধুমাত্র কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা তৃণমূলের নেতা কর্মিদিগকে জানিয়ে দেয়া হয়।            

          নির্দেশ নামায় বলা হয়ে থাকে, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। যদি কেহ নির্দেশ নামা অমান্য করে তবে তার বিরুদ্ধে দলের শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কার সহ দলের প্রাথমিক সদস্যের পদ থেকেও বাদ দেয়ার কথা বলা হয়ে থাকে। এই প্রক্রিয়াকে তৃণমূলের লোকজন দলের একশ্রেণীর কেন্দ্রীয় নেতাদের অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত  মনে করে একই দলের মধ্যে থেকে নির্বাচনে প্রার্থী দাঁড় করাতে কুন্ঠাবোধ করেনি। যে কারণে দলের এ ধরণের নির্বাচনের প্রার্থীকে দলের ভিতর বিদ্রোহী প্রার্থী বা স্ববিরোধী প্রার্থী হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে। এমনও দেখা যায়, নির্বাচনের অল্প দিন আগেও প্রার্থী পরিবর্তন করে নতুন প্রার্থী চাপিয়ে দেয়া হয়ে থাকে। অনেকেই এ পন্থাকে অগণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কালচার (ঁহফবসড়পৎবঃরপ ঢ়ড়ষরঃরপধষ পঁষঃঁৎব)  বলেও আখ্যায়িত করে থাকে।                

          একাদশ সংসদ নির্বাচন অক্টোবর ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারীর ৯০ দিনের মধ্যে অনুষ্টিত হওয়ার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ৯০ দিনের বাধ্যবাধকতার অজুহাত দেখিয়েই বড় দল বিএনপিকে বাহিরে রেখেই আওয়ামী লীগ এককভাবে এবং জাতীয় পার্টিকে সাক্ষী গোপাল হিসেবে সাথে নিয়ে তাড়াহুড়া করে ২০১৪ সালের ৫
চলমান পাতা/২
পাতা: ২

জানুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। ১৫৩ জন সংসদ সদস্য ভোটার বিহীনভাবে নির্বাচিত হয়। অপরদিকে এরশাদের জাতীয় পার্টি বিরোধী দলের আসনে সমাসীন হয়। তাছাড়া জাপা (মঞ্জু) একটি আসন, ওয়ার্কাস পার্টি ও জাসদ ইনু বেশ কয়টি আসন লাভ করে থাকে। তাদের মধ্য হতে এরশাদের সহধমির্নী বিরোধী দলের নেতা, এরশাদ মন্ত্রীর  মর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দুত, একজনকে মন্ত্রী ও দুইজনকে প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা দেয়া হয়ে থাকে। অপরদিকে ওয়ার্কাস  পার্টির একজন এবং জাসদের একজনকেও মন্ত্রী করা হয়ে থাকে।                

         একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনটি ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর পুনরাবৃত্তি হবে নাকী বড় দল বিএনপিসহ অন্যান্য দল নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে, তা এখনও কোন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বিজ্ঞ রাজনীতিকরা পরিষ্কারভাবে কোন কিছু খোলাসাভাবে ব্যক্ত না করলেও, এ নিয়ে জটিলতাকে অনেকেই একেবারে উড়িয়ে দিচ্ছেনা। ইতোমধ্যে বিএনপি যেমনি সহায়ক সরকারের কথা বলছে, তেমনি পত্রপত্রিকায় জাসদ (রব), বিকল্পধারা, গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ও নাগরিক ঐক্যের ৫ নেতাও বর্তমান সরকারকে ক্ষমতায় রেখে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যেতে চাচ্ছেনা। এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির এরশাদ কী বলেন বা না বলেন, এদিকে কাহারও তেমন কোন আগ্রহ পরিলক্ষিত না হওয়ার মতই বলা চলে। কারণ তিনি (এরশাদ) এখনও সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বিদেশ দূত হিসেবে মন্ত্রীর মর্যাদায় সকল প্রকার সরকারী সুযোগ সুবিধা কড়ায় ঘন্টায় ভোগ করে আসছেন। অনেকে তাকে ডিগবাজিরকর বলেও আখ্যায়িত করে থাকে। সকালে, বিকেলে ও রাতে রূপ বদলানোর কারণে যেমনি তাকে দেশের মানুষ বিশ্বাস করতে চায়না, তেমনি যে ১৪ দলীয় মহাজোটের সাথে আছে সেই জোটের অনেকের কথাবার্তা, বক্তৃতা, বিবৃতিতেও খুব একটা আমলে নেয়ার মতো প্রেক্ষাপট মনে করেনা। তদোপরি ১৪ দলীয় মহাজোট থেকেও ৫৮ দলের একটি নতুন জোটও করেছেন এরশাদ। অনেকেই  মনে করে বাঘে রাখালকে খাওয়ার মতো এমন অবস্থাও হতে পারে।

          একাদশ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের ব্যাপারে ইসি, সিইসির সাথে ৩১ জুলাই সুশীল সমাজের আলোচনা কালে এক বাক্যে সবাই নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়ন প্রত্যাশা করলেও, এখন পর্যন্ত সিইসির মুখ থেকে সুষ্পষ্ট ঘোষণা না আসলেও দেশের মানুষ বিভিন্ন রাজনৈতিক  দল ও সুশীল সমাজ আশাবাদী, দেশের মানুষের প্রত্যাশানুসারে নির্বাচনের শান্তি শৃংখলা রক্ষা, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রেক্ষাপটে সেনাবাহিনী মোতায়নের প্রত্যাশা হয়তোবা অবজ্ঞা নাও হতে পারে। ১৬ ও ১৭ আগস্ট গণমাধ্যম ও তৎ পরবর্তী সময় পর্যায়ক্রমে নিবন্ধিত ৪০টি দলের প্রতিনিধিদের সাথেও বসছে ইসি, সিইসি। দেখা যাক ইসির সর্বশেষ সমীকরণে কোন নদীর পানি কোন সাগরে গিয়ে শেষ হয়।

          আগামী একাদশ নির্বাচনের প্রায় একবছর ৫ মাস সামনে থাকলেও যেমনিভাবে এখনই কেন্দ্র দলীয় মনোনয়ন প্রার্থীর ব্যাপারে তৃণমূলের প্রার্থীদের ওপর জোর দিচেছ, তেমনি গণমাধ্যম সম্ভাব্য এলাকা ভিত্তিক বিভিন্ন দলের প্রার্থীদের পরিচিতি সহ প্রতিদিন সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ করছে। অনেকেই স্বপ্রণোদিত হয়ে এখন থেকেই খবরের কাগজে পরিচিতি এবং ঈদকে সামনে রেখে রঙ বেরঙের পোষ্টার এবং সমাজ কর্মির প্রলেপ গায়ে মেখে বিজ্ঞপ্তি ছাপানোতে সিদ্ধহস্ত বলে এখন থেকেই চায়ের টেবিল চাঙ্গা রাখতে লক্ষ্য করা যায়।

         এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি দেশের অন্যান্য নির্বাচনী এলাকা ও জেলার ন্যায় ময়মনসিংহ, নেত্রকোণা, শেরপুর ও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকার প্রার্থীদের পরিচিতি চোখকে এড়িয়ে যাওয়ার নয়। তম্মধ্যে কিশোরগঞ্জের ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬ নির্বাচনী এলাকার কিছু প্রার্থীদের হাল হকিকত গণমাধ্যমে অনেকেরই দৃষ্টি আকৃষ্ট করেছে এবং আলোচনা সমালোচনার কোথায়ও কমতি লক্ষ্য করা যাচেছনা। এ ব্যাপারে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের তৃণমুলের নেতাকর্মি ও জনগণ মনে করে আগামী নির্বাচনে অতীতের মতো কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন দিয়ে প্রার্থী চাপিয়ে না দিয়ে তৃণমূলের নেতা কর্মি ও জনগণের সমর্থিত প্রার্থীকে যেন বেছে নেয়া হয়। তাছাড়া দেশের মানুষ কোন অবস্থাতেই আর বিনা ভোটের  সংসদ সদস্য দেখতে চায়না। ক্ষমতায় যে দল বা যে ব্যক্তিই সংসদ সদস্য হয়ে আসুক না কেন, মানুষ চায় ভোটের অধিকার, জনগণের সুখ দুঃখের সাথে জড়িত মনোনীত প্রার্থী এবং ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত প্রার্থী। কোন অবস্থাতেই ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর  মতো আর কোন নির্বাচন মানুষ দেখতে চায় না। দেশ ও বিদেশে গ্রহণযোগ্য একটি সংসদ নির্বাচন যেমন দরকার, তেমনি দেশের মানুষেরও প্রত্যাশা। বর্তমানে ষোড়শ সংশোধনীর পক্ষে ও বিপক্ষে পার্লামেন্ট ও সুপ্রীম কোর্টের মধ্যে টানা হেচড়া চলছে, অনেক রাজনৈতিক ও পার্লামেন্ট বিশ্লেষকরা মনে করে, দেশে যদি একটি গ্রহণযোগ্য পার্লামেন্ট থাকতো তবে হয়তোবা এ বিষয়টি নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে এমন অবস্থার সৃষ্টি না হয়তোবা হতে পারত।

চলমান পাতা/৩
পাতা: ৩

            এ নিবন্ধের দুটি বিষয়ের ওপর আলোকপাত না করলেই নয়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর কোন এক জাতীয় সংসদের নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়ার পর উক্ত প্রার্থী মনোনয়ন পত্র দাখিল করতে গিয়ে জানতে পারে তার স্থলে অন্য একজনকে সেই নির্বাচনী এলাকায় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। তা জেনে উক্ত প্রার্থী যেমনি হত বিহবল হয়ে পড়ে, তেমনি তৃণমূলের দলীয় নেতাকর্মি, জনগণ ও সাংবাদিকদের বিভিন্ন জিজ্ঞাসার উত্তরে এক পর্যায়ে বলে থাকে কারো প্রত্যাশা মোতাবেক কোনো এক ঈদের আগে সিন্ধি ষাড় উপঢৌকন দিতে পারিনা বলেই আমার এ বিপর্যয়। যদিও আমি দীর্ঘদিন ধরে দলের নিবেদীত এবং একনিষ্ট কর্মি হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। তদোপরি দলের জন্য জেলও কম খাটা হয়নি। আর আমার স্থলে যাকে দলের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, তিনি দলের নিউকামার ও অর্থবিত্ত আমার চেয়ে অনেক অনেক বেশী। যিনি শুধু সিন্ধি ষাড়ই নয় আরবের নাদুস নুদুস উট ও হরিয়ানা জাতের বিশ্ববিখ্যাত ষাড় দিতেও কুন্ঠাবোধ করার কথা নয়। তাছাড়া কিশোরগঞ্জ জেলার কোন এক পৌরসভার নির্বাচনে তৃণমূলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে জনৈক প্রার্থী এলাকায় ভোট চাওয়া থেকে শুরু করে হাত মিলানো পর্ব ও দোয়া প্রার্থনা করে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে গিয়ে জানতে পারে তার স্থলে দলের হাই কমান্ডের নির্দেশে অন্য একজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এমন বিভ্রান্তি সিটি কর্পোরেশন, জেলা পরিষদ, উপজেলা, পৌরসভা এবং ইউপি নির্বাচনের বেলাতেও গণমাধ্যমে কম পরিলক্ষিত হয়নি।

            নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়ার ব্যাপারে তৃণমূলের রাজনৈতিক নেতা কর্মিদের কথা ঢাক ঢুল পিটিয়ে বলা হলেও বাস্তবে অনেক সময় ব্যতিক্রম ঘটে বলে শুনা যায়। যেমন সোনাবানের পুঁথি পাঠক যদিও বলে থাকে লক্ষ লক্ষ সৈন্য মরিল কাতারে কাতার তেমনি শেষ পংক্তিতে বলে থাকে গুনিয়া বাছিয়া দেখি মাত্র তের হাজার। তৃণমূলের যাচাই-বাছাই মনোনয়ন দেয়াকে  অনেকেই সোনাবানের পুঁথির সাথেও তুলনা করতে ভুল করেনা। একাদশ নির্বাচন সহ অন্যান্য দলীয় নির্বাচনে যাতে মনোনয়ন দেয়ার ব্যাপারে এমন না ঘটে, ভোক্তভোগী সহ দলের ত্যাগী ও তৃণমূলের নেতা কর্মিদের এ অভিলাষ বলে জানা যায়। তদোপরি সিন্ধি ষাঁড় না দেয়ার কারণে কারো মনোনয়ন বাতিল না করে অন্য একজন অপাংক্তেয়কে যাতে রাতারাতি মনোনয়ন না দেয়া হয় ইহাই যেমন দলের ত্যাগী নেতা কর্মিদের প্রত্যাশা তেমনি যাতে অবাধ, সুষ্টু, নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়ে স্বচ্ছ ও গ্রহনযোগ্য পার্লামেন্ট গঠিত হয় ইহাও দেশের জনগণ, ভোটার ও সুশীল সমাজের প্রত্যাশা। তাই অবাধ, সুষ্টু, নিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ভোট অনুষ্ঠানের ব্যাপারে মানবাধিকারের অগ্নিপূরুষ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও দার্শনিক ম্যালকম এক্স ১৯৫৯ সালে বলেছিলেন “যত পারো গুলিতে বুক ঝাঁঝরা করে দাও, কিন্তু ভোটাধিকার আদায় না করা পর্যন্ত রাস্তা ছাড়ব না।

            তৃণমূলের রাজনৈতিক কর্মিদের সিদ্ধান্তকে অপঘাত করে চাপিয়ে দেয়া সিদ্ধান্ত যেমন দলের জন্য অন্তর্ঘাতমূলক সিদ্ধান্ত তেমনি নির্বাচনে জনগণের ভোটের অধিকারকে ভিন্ন পথে তাড়িত একনায়কতন্ত্র, স্বৈরতন্ত্র, ভেজাল গণতন্ত্রের মুখ মুখোশ, রাতের ঝিঁ ঝিঁ পোকা ও ভুতের আলোর আলেয়ারই প্রতিচ্ছবি। কথায় নয়, কাজের মাধ্যমে তৃণমূলের রাজনৈতিক নেতা কর্মিদের ওপর কোন সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেয়া নয় বরং তাদের সিদ্ধান্তই হোক রূপকারের অভিষেক।

 
এ.কে.এম শামছুল হক রেনু
লেখক কলামিষ্ট

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
 
A- A A+ Print this E-mail this
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
Fairnews24.com, starting the journey from 2010, one of the most read bangla daily online newspaper worldwide. Fairnews24.com has the highest journalist among all the Bangladeshi newspapers. Fairnews24.com also has news service and providing hourly news to the highest number of online and print edition news media. Daily more then 1, 00,000 readers read Fairnews24.com online news. Fairnews24.com is considered to be the most influencing news service brand of Bangladesh. The online portal of Fairnews24.com (www.fairnews24.com) brings latest bangla news online on the go.
৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fns24.com
fnsbangla@gmail.com
Maintained by : fns24.net